মাসিক অনিয়মিত হবার পাঁচ কারণ

প্রকাশিত: 8:19 PM, October 3, 2020

লাইফস্টাইল ডেস্ক : প্রত্যাশিত তারিখ পরবর্তী পাঁচদিন পর্যন্ত মাসিক না হলে তা বিলম্বিত পিরিয়ড হিসেবে বিবেচিত হয়। ছয় সপ্তাহ বা প্রত্যাশিত তারিখের বেশি অতিবাহিত হলে তা মিস হিসেবে গণ্য হয়। এসব বিষয়ে উদ্বিগ্নের কারণ না থাকলেও সম্ভাব্য গর্ভাবস্থার ক্ষেত্রে এই বিলম্বিত সময়কাল উদ্বিগ্নের কারণ হতে পারে। এক্ষেত্রে কোনো প্রকার দুর্ঘটনা এড়াতে আপনাকে স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

মাসিক দেরিতে হওয়ার পাঁচটি কারণ নিম্নে উল্লেখ করা হলো-

১. দুশ্চিন্তা
দীর্ঘস্থায়ী মানসিক চাপ মহিলাদের দেরিতে মাসিকের অন্যতম প্রধান কারণ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে অতিরিক্ত চাপ হিপোথ্যালামাসকে প্রভাবিত করে, যা ইস্ট্রোজেনের উৎপাদন এবং ডিম্বস্ফোটনের প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে। ফলে ডিম্বস্ফোটন সময়মতো হয় না, এতে আপনার মাসিক দেরিতে বা এমনকি মিস হতে বাধ্য হয়।

২. ওজন হ্রাস
হঠাৎ প্রচুর পরিমাণে ওজন হ্রাস আপনার সময়সীমা দেরির জন্য দায়ী। অনেক ওজন হ্রাস শারীরিক চাপ বাড়ায় এবং দেহের লুটিইনিজিং এবং ফলিকেল-উত্তেজক হরমোনগুলোকে ভারসাম্যহীন করে তোলে, যা ডিম্বাশয়ের সময় ডিম্বাশয়ের ফলিকালগুলোর পরিপক্কতা এবং মুক্তির জন্য প্রয়োজনীয়। দুশ্চিন্তার মত ওজন হ্রাসও মাসিক দেরি হওয়ার জন্য দায়ী।

৩. ব্যায়াম
অল্প বয়স্ক অ্যাথলেট এবং ব্যালে নৃত্যশিল্পীদের মাঝে মিস বা দেরিতে সময়কাল বেশ সাধারণ। তবে এটি কখনই খুব বেশি হালকাভাবে নেওয়া উচিত নয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে আপনি যখন খুব বেশি অনুশীলন করেন তখন আপনার শরীর প্রচুর পরিমাণে ক্যালোরি পোড়ায়। যদি আপনি এই সমস্ত ক্যালোরি তৈরির জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে না খেয়ে থাকেন তবে শরীর সারভাইবাল মোডে চলে যাবে। যেহেতু গর্ভাবস্থা কোনও ব্যক্তির বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় কিছু না, তাই আপনার দেহও ডিম্বস্ফোটন বন্ধ করে দেয়।

৪. ঘুমানোর সময়সূচি পরিবর্তন
আপনি যদি বাইরে ভ্রমণ, রাতে কাজ করার প্রবণতা বা অস্বাভাবিক সময়ে ঘুমিয়ে পড়ার প্রবণতা থাকে তবে তা আপনার মাসিক সময়সীমাকে বিলম্বিত করবে। আমেরিকান একাডেমি অফ স্লিপ মেডিসিনের মতে, যেসব মহিলা ঘুমাতে যাওয়া এবং উঠার প্রক্রিয়ায় দেরি করছেন, যারা ঘুম থেকে ওঠার প্রচলিত সময় থেকে ২ ঘণ্টা পরে উঠছেন তাদের মাসিক অনিয়ম হয়।

৫. জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল
যদি আপনি সবে জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল নেওয়া বন্ধ করে দিয়ে থাকেন তবে মাসিক মিস করা বা দেরি হওয়া স্বাভাবিক। জন্ম নিয়ন্ত্রণের পিলগুলো আপনার দেহকে ডিম্বস্ফোটন বা গর্ভাবস্থার জন্য হরমোন তৈরি থেকে বিরত রাখে। আপনি যখন পিল গ্রহণ বন্ধ করেন, আপনার শরীরের স্বাভাবিক কার্যকারিতা ফিরে পেতে বা ভারসাম্য রাখতে কিছুটা সময় নেয়।
আপনার স্বাভাবিক চক্রে ফিরে আসতে কয়েক সপ্তাহ থেকে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে। তবে দুশ্চিন্তা মুক্ত হতে ডাক্তারের সাথে অবশ্যই পরামর্শ ও যোগাযোগ রাখতে হবে। সূত্র: আনন্দবাজার