গাজীপুরে বয়লারে কয়লার ব্যবহার, ঝুঁকিতে পরিবেশ

প্রকাশিত: 12:58 PM, June 4, 2020

জাগ্রত বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: গাজীপুর সদর দক্ষিণ সালনা এলাকার কলোটেক্স এ্যাপারেল সোয়েটার লিমিটেড কারখানার বয়লার চলছে কয়লা দিয়ে। এতে, পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতিসাধন হচ্ছে বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।

জীবনে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে ওই কারখানার আশেপাশের স্থানীয় বাসিন্দরা। স্থানীয়দের অভিযোগ, কারখানার কর্তৃপক্ষ অধিক মুনাফা লাভের আশায় সাশ্রয় কয়লা দিয়ে অবৈধ উপায়ে বয়লার চালাচ্ছে।যার ফলে এলাকার পরিবেশে দূষিত হওয়ার পাশাপাশি ব্যাপক রোগবালাই ছড়িয়ে পড়ছে।বয়লার থেকে ছোট ছোট কলো কণা উড়ে এসে পড়ছে পুরো এলাকায়। অনেকটাই ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করতে হচ্ছে এলাকাবাসীরদের। গাছপালারও ব্যাপক ক্ষতিসাধন হচ্ছে। এ এলাকায় আগের চেয়ে দ্বিগুন রোগবালাই বেড়ে গেছে। কয়লার বয়লারের কারণে এলাকার অনেকেই শ্বাসকষ্টে ভুগছে এবং বড় বড় রোগবালাই আক্রমণ করছে। কারখানা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আমলে নিচ্ছেন না বলে জানায় স্থানীয়রা।

তারা বলেন, সাশ্রয় ও অধিক মুনাফার লোভে পড়ে কারখানার কর্তৃপক্ষ বয়লারে ব্যবহার করছে কয়লা। কয়লা পরিবেশবান্ধব না হওয়ায় পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। বিষয়টি দেখার কেউ নেই।

স্থানীয়দের অভিযোগ, আগের তুলনায় বর্তমানে বয়লার থেকে কালো কণা উড়ে এসে বাসাবাড়িতে পড়ছে এবং এতে চরম অসুবিধা হচ্ছে।কলোটেক্স এ্যাপারেল সোয়েটার লিমিটেড কারখানার উত্তরে বসবাসরত সুফিয়া বেগম জানান, এলাকার অনেকেই এ কারখানার ধুয়ার বিষয়ে অভিযোগ করে আসছে। এলাকার কেউ কারখানার কর্তৃপক্ষের সাথে সমযোতা করতে পারছে না।

লিখিত অভিযোগ দিয়ে গাজীপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছে থেকে সমাধান পাওয়া যায়নি। সকাল ৫ থেকে ৯টা আবার দুপুর ২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত আমার ঘরে ধুয়ায় অন্ধকার হয়ে যায়। আমার সহ ছেলে-মেয়ের সকলের শ্বাসকষ্ট হচ্ছে। ভয়ে ডাক্টারকেও দেখাচ্ছি না।

একই এলাকার কৃষক মো. জামির উদ্দিন জানায়, গত কয়েক মাস যাবৎ কলোটেক্স এ্যাপারেল সোয়েটার লিমিটেড কারখানা থেকে কালো ধুয়ার সাথে কণার মত একটা ধানা ধানা পড়ছে। এতে, আমাদের কৃষিতে অনেক ক্ষতি হচ্ছে। কালো ধুয়া আর কণা পড়ে কৃষিজমিতে তেমন কোন ফসল হচ্ছে না।

স্থানীয় একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. আলতাফ হোসেন জানায়, আমার উদয়ন মডেল স্কুলে প্লে-গ্রুপ থেকে ৮ম পর্যন্ত ৫শ এর অধিক ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। আমার এই স্কুলের পাশে কলোটেক্স এ্যাপারেল সোয়েটার লিমিটেড কারখানাটি অনেক ক্ষতি করছে।

লিখিত অভিযোগ দিয়েও সামাধান পাচ্ছি না। স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের শ্বাসকষ্ট থেকে শুরু করে বড় বড় রোগ দেখা দিচ্ছে। স্থানীয়দের জানালেও তেমন কোন উপকার আসছে না।

এনিয়ে কলোটেক্স সুয়েটার কারখানা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে বিষয়টি তারা আমলে নেয়নি।
গাজীপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আব্দুস সালাম সরকার এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কয়লা দিয়ে বয়লার পরিচালনা করবে এটা অন্যায়। পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়।

তাছাড়াও, কয়লা দিয়ে বয়লার চালালে ওই কারখানার আশেপাশের বসবাসরত বাসিন্দরাদের ক্ষতি হবে। ইতিপূর্বে গাজীপুর সদর দক্ষিণ সালনা এলাকার কলোটেক্স এ্যাপারেল সোয়েটার লিমিটেড কারখানার বয়লার চলছে কয়লা দিয়ে এমন অভিযোগ পেয়েছি।

গাজীপুর পরিবেশ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে একটি টীম পাঠানো হবে। সত্যতা পাওয়া গেলে আইনগত কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এবিষয়ে গাজীপুর জেলা প্রশাসক এস.এম তরিকুল ইসলাম জানান, পরিবেশ থেকে সম্পূর্ণ ভাবে বলা আছে কয়লা দিয়ে বয়লার পরিচালনা করতে পারবে না। এটি পরিবেশের বিপদ ঢেকে আনে।

বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রাদূর্ভাব অনেক সমস্যা সৃষ্টি হবে। যদি কয়লা দিয়ে বয়লার পরিচালনা করে থাকে, তাহলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।