গাজীপুরে হাসপাতালের বিল মেটাতে সন্তান বিক্রি,পুলিশ সন্তানকে ফিরিয়ে দিলেন মায়ের কোলে

প্রকাশিত: 8:03 PM, May 2, 2020

জাগ্রত বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: হাসপাতালের বিল মেটাতে না পেরে সদ্যি জন্ম দেওয়া সন্তানকে ২৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে হাসপাতালের বিল পরিশোধ করেন শরীফ-কেয়া দম্পত্তি। বিল মিটিয়ে সন্তান ছাড়াই বাড়ি ফেরেন তারা।

শুক্রবার (১লা মে) গাজীপুর মেট্রোপলিটনের কোনাবাড়ি থানা এলাকার ’সেন্ট্রাল মেডিকেল হাসপাতালে’ এ ঘটনা ঘটে। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কাশিমপুরের এনায়েতপুর এলাকায় বাড়ি শরীফ-কেয়া দম্পত্তির। তার জানান, গত ২১ এপ্রিল গর্ভবতী স্ত্রী কেয়া খাতুনকে কোনাবাড়ির সেন্ট্রাল মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।


ওই দিনই সিজারের মাধ্যমে কেয়া খাতুনের কোল জুড়ে আসে ফুটফুটে একটি ছেলে সন্তান। এই কয় দিনে ওই হাসপাতালে তাদের বিল আসে ৪৭ হাজার টাকা। কিন্ত দরিদ্র শরীফ-কেয়া দম্পতি হাসপাতালের বিল পরিশোধ করতে পারেননি।
নবজাতকের মা কেয়া জানান, হাসপাতালে কর্তৃপক্ষ বাচ্চা রেখে দিয়ে আমাকে বের করে দেয়। বাধ্য হয়ে ২৫ হাজার টাকায় নবজাতকটিকে বিক্রি করে দেন। পরে সেই টাকায় হাসপাতালের বিল পরিশোধ করে বাড়ি চলে যান।

গাজীপর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার খবর পেয়ে মো. আনোয়ার হোসেন নবজাতককে কিনে নেওয়া ওই ব্যক্তিকে ২৫ হাজার টাকা ফেরত দেন। পরে নবজাতকে নিয়ে হাজির হন শরীফ হোসেনের বাড়ি। মায়ের কোলে তুলে দেন ফুটফুটে শিশুটিকে। পাশাপাশি সন্তানকে লালন-পালনের জন্য আরো পাঁচ হাজার টাকা তুলে দেন ওই দম্পতির হাতে।
কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঘটনাটি দুঃখজনক। এডিশনাল আইজি (এসবি) স্যারের মাধ্যমে ঘটনাটি শোনার পর খুব খারাপ লেগেছিল। খোঁজ খবর নিয়ে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। সন্তানটিকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে পেরে আমার খুব ভালো লেগেছে।’


হাসপাতালে ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোনায়েম খান জানান,আমার হাসপাতালে গত ২১এপ্রিল ভর্তি হয় ১৬ হাজার টাকার চুক্তিতে। তারা সঠিক সময় টাকা দিতে না পারায় বিলম্ব করে। এরপরে গত শুক্রবার হাসপাতালে ১৫হাজার টাকা পরিশোধ করে চলে যায়। বাচ্চা বিক্রির ব্যপারে আমি কিছু জানিনা।

এলাকাবাসী জানান, এই হাসপাতালে এমন ঘটনা এটাই নতুন নয়। আরও ঘটেছে। তবে মহামারীর এই সময়ে তাদের কসাই মনোভাব দেখানো উচিত হয়নি।