গাজীপুরে কৃষকের অ্যাপ ব্যবহার করে আমন ধান সংগ্রহ

প্রকাশিত: 11:44 AM, January 3, 2020

জাগ্রত বাংলাদেশ

স্টাফ রিপোর্টার: গাজীপুরে কৃষকের অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমে আমন ধান সংগ্রহ উদ্বোধন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে গাজীপুর সদর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে জয়দেপুর খাদ্য গুদাম প্রাঙ্গনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল জাকী এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি গাজীপুর জেলা প্রশাসক এস.এম. তরিকুল ইসলাম উপস্থিত থেকে আমন ধান সংগ্রহ অভিযান শুভ উদ্বোধন করেন।

প্রশাসক এস.এম.তরিকুল ইসলাম বলেন, এখনো যে, স্বয়ং সম্পূর্ণ হতে পেরেছি তা না। যেহেতু বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল। কারা ধান চাষ করছেন। তাদের সবার তথ্য গুলো আমাদের কাছে আছে। সেই তথ্য থেকে আমরা লটারীর মাধ্যমে কৃষক সিলেকশন করেছি। যে কারা কারা আমাদের ধান দিতে পারবেন। আগে কৃষকদের মাঝখানে ধান বিক্রিতে তিনজন মাধ্যমকে ধরা লাগত। পথেই বিক্রি হয়ে যেত ধান। সেই ধান যে কৃষকনা, সে নিয়ে আসত। এখন কিন্তুু সেটা আর হবেনা। যেহেতু কৃষকরে ভোটার আইডি রেজিস্ট্রেশন নাম্বার ব্যবহার করা হচ্ছে। সরকারের এই উদ্যোগের মাধ্যমে যে কৃষকের ধান, সে যেন নিজেই বিক্রি করতে পারেন। হয়তো এখন আপানাদের উৎপাদিত সব ধান বিক্রি করতে পারবেন না। কিন্তুু এক সময় হয়তো তা পারবেন। বর্তমান সরকার সেই দিকে পদক্ষেপ নিচ্ছে। যাতে কৃষকের কাছ থেকে আরো বেশী করে ধান ক্রয় করতে পারেন। সরকারের এই যোগপযোগী উদ্যোগ সকল চাষী ও কৃষকের নিকট আজ খুশির খবর।

সরকারের পক্ষ থেকে আজ কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয় করার পরীক্ষামুলক উদ্যোগ শুরু হলো। এবং এ কার্যক্রম পরবর্তীতে আগামী বছর বোর মৌসুমে সারা দেশে একসাথে চালু হবে। এবার কৃষকরা যে প্রক্রিয়ায় ধান বিক্রি করছে আশাকরি আগামী বছরও এটা চালু থাকবে। যারা কৃষক ও চাষী ফসল ফলান তাদের মধ্যে থেকে ধান বিক্রির জন্য কৃষক নির্বাচিত করা হবে। আর যেন মধ্যসত্ব ভোগীরা এ সুবিধা নিতে না পারে। কৃষকরাই যেন সরকারের এই উদ্যোগের পুরো সুবিধাটা নিতে পারে। তাহলেই এ উদ্যোগ সফল ও স্বার্থক হবে।

জেলা প্রশাসক আরোও জানান, প্রতি কেজি ধান ২৬ টাকা ধরে, প্রতি মন ধান ১০৪০ টাকায় ক্রয় করা হচ্ছে। এখানে ১১ শত ১৫ মেট্রিক টন ধান ক্রয় করার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। এবার গাজীপুরসহ সারা দেশে ১৬টি জেলায় পরীক্ষামূলক এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ধান ক্রয় করা হবে। আমাদের এখানে ৬৫৪ জন কৃষক ধান বিক্রির জন্য নির্বাচিত হয়েছেন। আজকে ধান বিক্রির জন্য তিন জন কৃষক ধান নিয়ে এসেছেন। লটারীতে নির্বাচিত কৃষক স্বপন কায়সারের কাছ থেকে অনলাইন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ১৪০০ কেজি ধান ক্রয় করা হয়। প্রতি নির্বাচিত কৃষক ৩ টন ধান বিক্রয় করতে পারবেন। কৃষক আতাউল্লাহ সরকার এর নিকট থেকে ২৬ শত কেজি ও মো. জাহাঙ্গীর আলমের নিকট থেকে ১৮ শত কেজি ধান ক্রয় করা হবে।

ধান সংগ্রহ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-গাজীপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা মো. জহিরম্নল ইসলাম খান। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-গাজীপুর সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাবিনা সুলতানা, গাজীপুর সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা শিখা আক্তার, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জয়দেবপুর খাদ্য গুদাম খন্দকার সেলিম হোসেন প্রমুখ।